গাউসুল আজম বড়পীর হযরত আব্দুল কাদের জিলানী (রা.)-এর পবিত্র ওফাত দিবস ৩০ ডিসেম্বর শনিবার

হৃদয়ে চাঁদপুর ডেস্ক:

বাংলাদেশের আকাশে রবিউস্সানি মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ২০ ডিসেম্বর বুধবার থেকে রবিউস্সানি মাসের চাঁদ গণনা শুরু হয়েছে। সে হিসেবে আগামী ৩০ ডিসেম্বর শনিবার পবিত্র ফাতেহায়ে ইয়াজদাহম। বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা বায়তুল মোকাররম ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভা কক্ষে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অলিকুলের শিরোমনি গাউসুল আজম বড়পীর হযরত আব্দুল কাদের জিলানী (রাঃ)-এর পবিত্র ওফাত দিবস তথা ফাতেহায়ে ইয়াজদাহম উপলক্ষে এ দিবসটি বাংলাদেশেও উদ্যাপন করবে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা।

‘ফাতেহা-ই-ইয়াজদহম’ বা ‘গিয়ারবী শরীফ’ ওলীকুলের শ্রেষ্ঠ, কুতুবে রব্বানী, মাহবুবে সোবহানী গাওসুল আজম হযরত মুহিদউদ্দিন আবদুল কাদের জিলানী (র.)-এর ওফাত দিবস হিসেবে পরিচিত এই পবিত্র দিবসটি বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানসহ উপমহাদেশের প্রায় সর্বত্র যথাযথ মর্যাদা সহকারে উদযাপিত হয়ে থাকে। তারই প্রবর্তিত কাদেরিয়া তরিকাপন্থী কোটি কোটি মুসলমানের নিকট দিবসটির তাৎপর্য ও মাহাত্ম্য অপরিসীম। তরিকতের ইমাম মহান সাধক হযরত গাওসুল আজমের রূহানী, আধ্যাত্মিক, ভক্ত-অনুসারীর প্রাণপ্রিয় এই ‘বড় পীর’ দুনিয়াময় ইসলামের যে আলোক শিখা জ্বালিয়ে গেছেন তা অনন্তকাল অনির্বাণ থাকবে।

গাওসুল আযম হযরত আবদুল কাদের জিলানী (র.) মা-বাবা উভয় দিক থেকে ছিলেন হাসানী-হোসাইনী অর্থাৎ হযরত আলী (র.)-এর বংশধর। তিনি হিজরী ৪৭০ সালের ১ রমজান মোতাবেক ১০৭৭-৭৮ খৃস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন এবং হিজরী ৫৬০-৬১ সাল মোতাবেক ১১৬৬ খৃস্টাব্দে ইন্তেকাল করেন। তখন তার বয়স হয়েছিল ৯০-৯১ বছর। বাগদাদে তিনি শিক্ষা লাভ করেন। কোরআন তফসীর, হাদীস, ফেকাহ, বালাগত (অলংকার শাস্ত্র, সাহিত্য), ইতিহাস অংকশাস্ত্র, যুক্তিবিদ্যা প্রভৃতি প্রচলিত সব বিষয়ে সনদ লাভ করেন। তিনি যুগ শ্রেষ্ঠ সাধক হিসেবে এবং শরিয়ত ও তরিকতের অনন্য সাধারণ ইমাম হিসেবে এবং ইসলামের পূর্ণজীবনদানকারী হিসেবে সর্বোচ্চ আসনে সমাসীন ছিলেন। তথ্যসূত্র(সীরাতুন নোমান)

জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ খবর

দিনপঞ্জিকা

September 2021
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930  

আর্কাইভস