শাহরাস্তি ইছাপুরা নলুয়া বাড়ি থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার, স্বামীসহ আটক ৪

শাহরাস্তি প্রতিনিধি: 

শাহরাস্তি থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার, স্বামীসহ আটক ৪ । ১৫ অক্টোবর ২০২০ শাহরাস্তি উপজেলার টামটা উত্তর ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামের নলুয়া বাড়িতে থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে থানায় পুলিশ। ময়না তদন্ত শেষে মৃতদেহটি বিকেলে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। আটক করা হয় তার স্বামী মহিউদ্দিন (২৬), শ্বশুর হারুনুর রশিদ (৫৫), শাশুড়ি আয়শা বেগম (৪৫) ও ননদ হাসনা আক্তার (১৭)।

জানা যায়, ২০১৭ সালে কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলার জোয়াগ ইউনিয়নের কৈলাইন গ্রামের পূর্ব গাজী বাড়ির আলী হাসানের একমাত্র কন্যা হাবিবা আক্তার রিয়া মনির (২০) বিয়ে দেয়া হয় চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার টামটা উত্তর ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামের নলুয়া বাড়ির হারুনুর রশিদের পুত্র মহিউদ্দিনের সাথে।

রিয়া মনির ভাই রিয়াদ আহম্মেদ জানান, আমার বোন সুন্দরী দেখে তার শ্বশুর পক্ষের লোকজন কিছু দাবি ছাড়াই আমাদের সাথে আত্মীয়তা করে। তারপরও আমরা তাকে প্রয়োজনীয় আসবাবপত্রসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র প্রদান করি। বিয়ের পর তাদের সাংসারিক জীবন ভালোভাবেই কাটছিলো। কিছু দিন অতিবাহিত হওয়ার পর আমার বোনকে তার স্বামী মহিউদ্দিন ঢাকার জিগাতলায় তার কর্মস্থলে নিয়ে যায়।

২০১৯ সালের ২৮ জুলাই তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তান জন্মগ্রহণ করে। সম্প্রতি করোনাকালীন সময়ে তার পরিবারের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে তার পরিবারকে তার স্বামী দেশের বাড়িতে রেখে যায়। সেই থেকে রিয়া মনি পরিবারের সদস্যদের সাথে বসবাস করে আসছিল। কিছুদিন যেতে না যেতে রিয়ার শ্বশুর পক্ষের লোকজন তাকে যৌতুকের টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। তারপর বাবা আলী হাসান মেয়ের সুখের জন্য রিয়ার শ্বশুর পক্ষকে দেড় লাখ টাকা দেন।

তরপরও রিয়া মনিকে শ্বশুর পক্ষের লোকজন মানসিকভাবে নির্যাতন চালাতো বলে রিয়ার পরিবার জানায়। ঘটনার দিন সন্ধ্যায় রিয়ার শ্বশুর, শাশুড়ি, ননদ একটি হলুদ অনুষ্ঠানে যায়। সেখান থেকে ফিরে এসে তারা রিয়ার কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে ঘরের দরজা খুলে রিয়াকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়।

এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে রিয়ার মা রেহেনা বেগম একটি মামলা দায়ের করেছেন। রাতেই শাহরস্তি থানা পুলিশ ৪ জনকে আটক করেছে। শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহ আলম জানান, নিহতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।

ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে আসলে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। রিয়া ১৫ মাসের একটি অবুঝ সন্তান রেখে কেন আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে সেই গুঞ্জন এলাকাবাসীর মধ্যে। তবে কারো কারো দাবি, রিয়াকে হত্যা করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ খবর

দিনপঞ্জিকা

December 2020
M T W T F S S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  

আর্কাইভস